Factory Establishment Licenses

Factory Establishment Licenses

Factory Establishment Licenses in Bangladesh

In Bangladesh, all factories and enterprises are required to register with the government in accordance with the Factories Act and Rules. All factories in Bangladesh are required by law to have a factory establishment authorization.

The District Office of the Department of Inspection for Factories and Establishments (DIFE) is responsible for the construction, establishment, and expansion of a factory, as well as its license acquisition and renewal. It is an impartial government agency responsible for inspecting the health and safety of Bangladeshi industries and other facilities. In addition, it educates and trains factories on worker health and Bangladeshi labor law enforcement.

The government has implemented an online application service for obtaining a business license. The Labor Inspection Management Application (LIMA) is a Department of Inspection of Factories and Establishments portal that significantly simplifies the application procedure.

Documents Needed:

1.Construction layout of the plant

2.Copy of the Business License

3.Completely filled out Forms 1 and 2.

4.Articles of Association (only for Limited Companies)

5.Original license charge or renewal fee receipt or Treasury Challan

6.License Reception and Renewal Payment based on the number of employees.

Process:

The online steps for acquiring a factory establishment license are outlined below:

1.Visit the Labour Inspection Management Application website located at “https://lima.dife.gov.bd/”

2.From the top menu, select “Forms” and then Forms “76” (approving the Factory Layout Plan) and “77” (License Application).

3.Generate a Username and Password

4.Auto Login/Login to Lima Portal with the new User ID and Password.

5.Complete the application form with the required information.

6.Attach any necessary attachments

7.Save application draft or complete the application

8.File Your Application

The DIFE Licensing Authority then evaluates the application.

10.The application is then sent to DIG (Deputy inspector general of police) or IG (inspector general of police), depending on the industry.

11.DIG/IG will evaluate the application and provide feedback.

12.If necessary, the factory or establishment shall be inspected and provide an inspection report.

13.If the Licensing Authority/DIG is satisfied after all evaluation and verification, the factory license shall be issued.

14.Obtain the Manufacturer’s License

Hire the best law firm in Bangladesh to get your Factory Registration Certificate:

TAHMIDUR RAHMAN REMURA WAHID Associates provides assistance in acquiring Factory Establishment Licenses.
To acquire a factory establishment license, TAHMIDUR RAHMAN REMURA WAHID can provide the following services:

TAHMIDUR RAHMAN REMURA WAHID has an excellent and capable team that can procure a license for a factory establishment. To apply for a factory license, it is first necessary to establish an account on the LIMA website. Legal professionals can initiate the application process by establishing an account on the LIMA online portal.

Supporting documents can vary depending on the sort of Factory or Establishment. The legal team of TAHMIDUR RAHMAN REMURA WAHID assists in the collection of supporting application documents, such as the NOC, Trade License/Incorporation Certificate, etc., and then prepares an application for a Factory License.

The legal specialists at TAHMIDUR RAHMAN REMURA WAHID can assist with drafting, collecting, and preparing the supporting documents. TAHMIDUR RAHMAN REMURA WAHID also makes the required government fee payments to the appropriate authority. The law firm is also considered as the Best law firm for industry in Bangladesh.

Once the application has been submitted, the status of the application can be monitored, and if the licensing authority requests additional documentation, the TAHMIDUR RAHMAN REMURA WAHID team can comply.


GLOBAL OFFICES:
DHAKA: House 410, ROAD 29, Mohakhali DOHS
DUBAI: Rolex Building, L-12 Sheikh Zayed Road
LONDON: 1156, St Giles Avenue, Dagenham

 Email Addresses:
info@trfirm.com
info@tahmidur.com
info@tahmidurrahman.com

24/7 Contact Numbers, Even During Holidays:
+8801708000660
+8801847220062

+8801708080817

Forcing a Shareholder to Sell His Shares in Banglades

Forcing a Shareholder to Sell His Shares in Banglades

Forcing a Shareholder to Sell His Shares in Bangladesh: A Shareholder Being Forced to Sell His Shares


Unless there is a contractual duty giving them the right to do so, a shareholder cannot usually compel another shareholder to sell their shares. For instance, if the company’s articles of association, shareholder agreement, or another legal contract contain a clause allowing for such a transfer.
Negotiating with the shareholder whose shares you wish to purchase is typically the best course of action for buying shares. Shares can be sold through a share transfer agreement, in which case the shareholders acquire the shares of the other shareholders, or through a business buy-back, in which case the shares are returned to the company.

This article provides answers to common questions posed by both majority and minority shareholders when disputes arise. It is a general guide to help you understand what factors must be considered to answer questions like:

  • Can a majority shareholder remove a minority shareholder?
  • Can a majority shareholder sell the company?
  • Can a minority shareholder block a sale?
  • Can a majority shareholder be removed?

Shares may be transferred or sold at the individual’s discretion:

First, either the transferer or the transferee must submit an application.
Second, it must be fully signed, stamped, and presented to the transferee with the firm by the transferer.
Thirdly, within a month of obtaining the transfer documentation for the shares, the corporation will send notices of refusal to both parties.
However, since they own a majority of the stock, the pro-sale shareholders may wish to adopt a special resolution at the annual general meeting amending the company’s articles of association to add clauses requiring the sale of the shares. This sale will be regarded as a sale at fair value, and frequently the Articles of Association contain a calculation that specifies how the valuation should be determined.

Shareholders’ agreements are yet another means of accomplishing this. Although this kind of agreement is uncommon in publicly traded organizations, it is crucial and a must in privately owned businesses. That’s because minority shareholders, particularly those who want to sell or transfer their shares to outside buyers, can generate serious issues for small businesses.

A Shareholder Being Forced to Sell His Shares:

A shareholders’ agreement might stipulate specific conditions under which one person must sell shares to fellow shareholders or back to the corporation, primarily as a safeguard against potentially chaotic situations. For instance, some corporations grant the company the first option to repurchase shares that descend to an heir after a shareholder’s passing. Other agreements may compel a sale under different terms. The remuneration that the selling shareholders will receive for their shares is frequently specified in the agreement. In some instances, the money the selling shareholders would receive won’t necessarily reflect the shares’ fair market value at the time of sale, but rather, it will reflect a formula that all shareholders will have agreed upon when they first signed the agreement.

Unless there is a contractual duty giving them the right to do so, a shareholder cannot usually compel another shareholder to sell their shares. For instance, if the company’s articles of association, shareholder agreement, or another legal contract contain a clause allowing for such a transfer.

Negotiating with the shareholder:

Negotiating with the shareholder whose shares you wish to purchase is typically the best course of action for buying shares. Shares can be sold through a share transfer agreement, in which case the shareholders acquire the shares of the other shareholders, or through a business buy-back, in which case the shares are returned to the company.

A special resolution to amend the company’s Articles of Association to add clauses requiring a sale of the shares could be passed if the shareholders who want the sale to proceed hold a majority shareholding (i.e., 75% of the shares). This sale would typically be at fair market value, and frequently the Articles of Association contain a formula that specifies how the price should be determined.

A minority shareholder, however, is entitled to apply to the court and allege “unfair prejudice.” The other shareholders are typically personally sued in response to an unfair prejudice petition filed by a minority shareholder, and they will typically have to pay for their own legal defense.

When a court determines that changes to the articles of association were made in good faith and in the best interests of the business, it follows that the court did not find that the changes were unreasonably adverse to a minority shareholder. However, it is likely that the minority shareholder will be able to oppose the modification if the motivation behind modifying the Articles is unlawful and not in the best interests of the firm. If the change is done in good faith and is in the best interests of the business, it may be acceptable even if it has a negative impact on or is intended to have a negative impact on a minority shareholder.

Advantage of the modification:

The advantage of the modification for the corporation will rely on whether a reasonable person would view it as being in the company’s best interests. According to current case law, judges did not find it to be unreasonably detrimental to modify the Articles of Association to allow majority shareholders to acquire minority shares. It’s crucial to remember that these landmark instances did not introduce the rights for the first time. The majority shareholders’ goal was to clean up the Articles of Association in order to promote consistency and clarity. It is somewhat more likely that a minority shareholder would prevail in a lawsuit for unfair prejudicial behavior if such rights were being introduced for the first time.

We emphasize that the preferred course of action is nearly always to negotiate with the opposing party and avoid any such allegations being made in order to avoid litigation, particularly litigation that is launched against shareholders personally. If shareholders decide to alter the Articles of Association, they should carefully evaluate their decision and make sure it is noted in the minutes adopting the special resolution.

However, these arrangements may also be detrimental to the interests of the smaller shareholders. Thus, if minority shareholders are forcibly forced to sell their shares or deal with the hidden harm that will be done to their interests, the legislation provides a remedy. A minority shareholder can therefore appeal to the court and claim “unfair prejudice” as a result. The other shareholders are typically personally sued in response to an unfair prejudice petition filed by a minority shareholder, and they will typically have to pay for their own legal defense.

Court’s take on changes to the articles of association:

However, a court concluded that the changes to the articles of association were done in good faith and in the best interests of the business; as a result, the court did not find that the changes were unreasonably adverse to a minority shareholder. However, it is likely that the minority shareholder will be able to oppose the modification if the motivation behind modifying the Articles is unlawful and not in the best interests of the firm. If the change is done in good faith and is in the best interests of the business, it may be acceptable even if it has a negative impact on or is intended to have a negative impact on a minority shareholder.

The laws are put in place to protect the rights of both parties, but they differ according on the circumstance in order to protect the interests of those who will be most impacted. The Bangladesh Companies Act of 1994, the Bangladesh Securities and Exchange Ordinance of 1969 (along with the Bangladesh Securities and Exchange Commission Act of 1993 and the rules made thereunder), the rules of the Dhaka Stock Exchange (DSE) and the Chittagong Stock Exchange (CSE), as well as the Company’s Articles of Association, serve as the primary regulatory framework for business matters in Bangladesh.

Are you planning to register a private limited company in Bangladesh?

Company formation and registration at Tahmidur Rahman TRW:

The legal team of Tahmidur Rahman, The Law Firm in Bangladesh TRW are highly experienced in providing all kinds of services related to forming and registering a Private Limited Company, Branch office Registration, Share Transfer Process in Bangladesh . For queries or legal assistance, please reach us at:

E-mail: info@trfirm.com
Phone: +8801847220062 or +8801779127165

Address: House 410, Road 29, Mohakhali DOHS, Dhaka 1212

Types of writ in bangladesh 2023

Types of writ in bangladesh 2023

Types of writ in bangladesh 2023

The purpose of a writ is to provide recourse for the enforcement of the law against governmental or statutory public bodies. A writ is a written document that commands or obligates a public body to do or refrain from doing something. Writ is applicable only to public entities.

In the Supreme Court case Abu-al-Siddique (Md.) vs. Bangladesh and Others, Writ Petition No. 7074 of 2012, a public body is defined as “any authority, body, corporation, or institution constituted or established by or under any law, and includes any other body, authority, or institution owned, managed, or established by the government.”

Subject to the identical grades and scales and uniform terms and conditions of service are the terms and conditions of any person holding a position in a public organization.

This scenario for applying for a writ may occur if a government body takes unjustifiable action against individuals.

Article 102 of the Constitution addresses the writ jurisdiction of the High Court Division, while Article 104 addresses that of the Appellate Division. In accordance with Article 102 of the Constitution of Bangladesh, the High Court Division may issue a variety of orders in the exercise of its writ jurisdiction.

Types of Writs in Bangladesh

According to the Bangladeshi constitution, there are five Types of writs in Bangladesh: Prohibition, Habeas Corpus, Certiorari, Mandamus, and Quo Warranto.

Prohibition

In the first part of Clause (2) of Article 102 of the People’s Republic of Bangladesh Constitution of 1972, the High Court Division is authorized to order a person carrying out functions relating to the affairs of the Republic or a local authority to refrain from doing what is prohibited by law.

Therefore, it addresses the prohibition writ, which is issued to prevent an individual from acting if the specified conditions are satisfied. The conditions are (a) a complaint filed by an aggrieved party, (b) the absence of an equally effective remedy, (c) acts committed without jurisdiction or in excess of jurisdiction, and (d) by a person performing functions related to the affairs of the public body.

(a) An application lodged by a complainant:

The prohibition writ may only be issued if it is requested by an aggrieved party. The expression “aggrieved individual” is not defined in the Constitution. Regarding the specific circumstances and circumstances of each case, the Court has determined the meaning of the expression in various instances.

As a general rule, an individual is considered an aggrieved party if he or she has a direct private interest in the subject matter of the petition. This rule applied to both individuals and groups of individuals.

As in Bangladesh, Sangbad Patra Parishad vs. Bangladesh challenged an award from the Wage Board by the association of newspaper proprietors, the High Court Division ruled, in rejecting the petition, that ‘the association had no direct private stake in the Wage Board award law.

It is not obligated to pay anything pursuant to the award to any of the entities in question; rather, it is the proprietors of the individual newspapers who must pay, and they are displeased.

(b) No equally effective treatment option exists

Before issuing any prerogative (in the form of various types of orders under Article 102 of the Constitution), the Supreme Court of Bangladesh must be satisfied that the aggrieved individual has exhausted all other similarly effective legal remedies.

If the aggrieved individual does not prefer the alternative solution and does not provide a sufficient explanation for not doing so, the individual will not be eligible for the High Court Division’s exceptional remedies in the exercise of their writ jurisdiction.

(c) Acts committed without authority or in excess of authority

No Authority may transgress the jurisdiction of the statute. Any action taken by an agency that exceeds its authority is invalid and ultra vires.

This is the case even if a portion of the law has jurisdiction and another portion does not. And the jurisdictional portion cannot be separated from the remainder without causing harm to anyone. In Abdul Khaleque vs. Court of Settlement, Kaji Shafiuddin, J. stated, “There can be no doubt that if a Tribunal or Court acts utterly without jurisdiction, its action would be null and void… If actions done with and without jurisdiction are so intertwined that action done with jurisdiction cannot be separated without prejudice to either party, then the entire action may be declared null and void.

(d) By a person executing functions related to the public body’s business

In addition to judicial and quasi-judicial bodies, administrative officials may also receive the prohibition letter. Similar to mandamus and certiorari (which will be discussed later), it can be issued against any authority, regardless of the nature of its function, if it performs functions related to the Republic or any local authority’s affairs.

The term ‘local authority’ refers to a body or individual authorized by law or the government to carry out specific administrative duties. It is allocated a portion of the government’s sovereign function. These responsibilities must be carried out for the benefit of the public. It must be an individual performing duties related to the affairs of the Republic.

Mandamus

Mandamus is an order or order of the court that directs a person, corporation, or inferior tribunal to perform a specific duty. When a court, tribunal, authority, or person fails to perform his statutory duty, the High Court orders the Court or person to perform his statutory duty.

The second part of clause (2) (a) (i) of Article 102 authorizes the Division of the High Court to issue instructions in the nature of mandamus writs to compel a person performing duties related to the Republic or a Local Authority to comply with the law.

The difference between mandamus and prohibition is that mandamus commands a public official to do what they are required by law to do, whereas prohibition prohibits them from doing what the law prohibits.

Similar to a prohibition, mandamus will not be granted if the aggrieved party does not submit or if there is an equally effective legal remedy available. Mandamus may assign duties to any individual in relation to the affairs of the Republic or a local authority.

Mandamus cannot be used to enforce public policy or any other matter that is not a public duty. To be eligible for a mandamus order, the petitioner must have the legal authority to perform the public duty.

In Fisherman Telekhal Progressive v. Bangladesh, the petitioner challenged the settlement of two fisheries on the grounds that the settlement was made contrary to government policy, as stated in government memorandums. The government memorandum was the dissemination of a government policy without any statutory force.

Certiorari

The purpose of certiorari is to oversee the superior courts’ actions and ensure they have not exceeded their jurisdiction. When certiorari is granted by the High Court Division, it is similar to a prohibition.

(a) An aggrieved person submits an application for the same

(b) no other remedy similarly efficacious is provided by law

(c) The individual to be prosecuted performs duties related to the Republic’s or local government’s affairs.

Unlike a prohibition, however, it is issued after the act or proceeding has been completed to declare that it was carried out without legal authority and without legal effect. While a prohibition is issued to prevent the act or proceeding when it is incomplete and more must be prevented, certiorari is issued when the act or proceeding is complete.

Writ of Corpus

In accordance with clause (2) (b) (i) of Article 102 of the Bangladesh Constitution of 1972, the High Court Division is authorized to order that a detainee be brought before him to ensure that he is not being held without legal authority or unlawfully.

Habeas Corpus is a writ that is issued to protect liberty, especially liberty that is regarded as crucial. It is conferred against unlawful detention or deportation by the police authority. Habeas Corpus is a type of court order that directs the authorities to hold an individual in detention until he or she is brought to court. The authorities must then explain why he is being detained.

If the explanation is inadequate, the court may order the release of the individual. Habeas corpus is thus a means of ensuring the subject’s liberty.

This individual must hold a government position. A public office implies a constitutional office or a law pertinent to the affairs of the Republic or a local authority. It will only be awarded when a government official has a public duty under the law and refuses to fulfill it. It could be administrative, quasi-judicial, or judicial.

Thus, the writing of habeas corpus lies when an individual is apprehended without lawful authority or in an illegitimate manner. If the law requiring imprisonment is unconstitutional or invalid, or if the law is valid but the order is illegitimate or exceeds its authority, the order will be granted.

An action is unlawful if it is ill-intentioned, a shady use of authority, done for insignificant or foreign reasons, or if the detaining authority does not apply its mind. In the case law Abdul Latif Mirza vs. Bangladesh, the detention period ordered by the Deputy Commissioner expired and a new detention order issued by the government was served on the detainee two days later, while the detention was declared unlawful for the subsequent two days.

Que Warranto

Quo-Warranto is a writ issued by the High Court that confirms a person’s title to an office, evicting any unlawful occupants. When an individual illegally holds a law-created public office, the High Court may, by issuing quo-warranto, require the individual to demonstrate on what authority he holds the office and prohibit him from holding it in the future.

Article 102 (2)(b)(ii) of the Bangladeshi Constitution of 1972 grants the High Court Division the authority to issue quo warranto orders. A person holding or claiming to hold a government office may be required to demonstrate the authority under which he claims to hold that office.

If there is a request for the same item and no other similarly effective legislative solution exists, this document may be issued. As with habeas corpus, it should be noted that an aggrieved individual is not required to file a quo-warranato petition. Unlike habeas corpus, however, the former is discretionary despite its obligatory nature.

It grants the judiciary the jurisdiction and authority to monitor executive action in matters of appointing government officers against the applicable statutory provisions.

A person will be found to hold a public office without legal authority if he is ineligible to hold the office or if certain mandatory provisions of the law were violated when he was appointed or entered office. Additionally, the quo-warranto prevents a citizen from being denied a public office to which he is entitled.

Are you planning to do a writ or looking for criminal and civil remedies in Bangladesh?

Tahmidur Rahman Remura Wahid TRW is a full-service law firm that has been dealing with Writ-related problems on a regular basis since its inception through its qualified and experienced lawyers.

If you require any assistance or consultation, please visit our office or contact us at +8801779127165 or +8801847220062 (WhatsApp) or by email- info@trfirm.com.

E-mail: info@trfirm.com
Phone: +8801847220062 or +8801779127165 or +8801708080817

Address: House 410, Road 29, Mohakhali DOHS, Dhaka 1206


GLOBAL OFFICES:
DHAKA: House 410, ROAD 29, Mohakhali DOHS
DUBAI: Rolex Building, L-12 Sheikh Zayed Road
LONDON: 1156, St Giles Avenue, Dagenham

 Email Addresses:
info@trfirm.com
info@tahmidur.com
info@tahmidurrahman.com

24/7 Contact Numbers, Even During Holidays:
+8801708000660
+8801847220062

+8801708080817

Types of leave in Bangladesh

Types of leave in Bangladesh

Types of leave in bangladesh under the labour law 2006

Leave and vacation under the Labor Code


In accordance with the Labour Law, both employees and employers must be aware of the legal provisions governing types of leave in bangladesh. In addition, according to labor law, the HR department of a corporation must be aware of the exact procedure for leave and holidays.

This article will therefore concentrate on the various types of leave and holidays, procedures, and benefits available to employees. In addition, the concentration of this article is on maternity leave and benefits for women in Bangladesh.

The Labour Law of 2006 provides workers with three categories of leave, namely:

  • Casual pay
  • Illness absence
  • Annual leave
  • CASUAL LEAVE

Every employee is entitled to ten (ten) days of unpaid leave during the calendar year. Such leave shall not accrue or be carried over to the following year.

SICK LEAVE

Every laborer shall be entitled to fourteen (fourteen) days of paid sick leave per calendar year. No such leave shall be granted unless he has been examined by a licensed physician. In addition, the Doctor must issue corresponding certificates. Such absence may not be accrued or carried forward to the following year.

ANNUAL LEAVE WITH WAGES

Every adult employee with one year of continuous service in an organization shall be eligible for annual leave. During the subsequent twelve months, an employee may request annual leave. Annual leave will be calculated at the rate of one day of paid leave for every eighteen days of work.

If a worker does not take advantage of the above-mentioned leave, he may still request it within twelve months.


Types of holidays governed by the law

According to the law, two categories of holidays are available to workers:

  • Festival vacations
  • Weekly holidays


Festival vacations:

Every employee will receive eleven (eleven) paid festival days per calendar year. If a worker is required to work on a festival holiday, he or she will receive two additional paid holidays and a substitute holiday.

Weekly holiday:

Each week, an adult laborer can claim –

one and a half days holiday for the shop, commercial establishment, or industrial establishment, and in a factory and establishment one day per week; can claim in each week one day’s holiday of twenty-four consecutive hours if he works for a road transport service; and no deduction shall be made from the wages of any such worker on account of such holidays.


Payroll calculation during absence or vacation

A laborer shall be compensated at a rate equal to the daily mean of his full-time wages for any leave or holidays granted by this Act. The salary will include dearness allowances and ad hoc or interim payments, if any, for the days he worked in the month prior to the leave. However, it will exclude overtime pay and bonuses.

PAYMENT OF WAGES FOR UNVEILED LEAVE

If a worker’s annual leave is forfeited due to retrenchment, discharge, removal, dismissal, termination, retirement, or resignation, the employer must pay the worker’s compensation in lieu of the forfeited leave. In accordance with the Labour Act of 2006, the rate of pay will be the same as that to which any worker is entitled during his leave.

Method for Leaving

A laborer who wishes to obtain a leave of absence must submit a written request to his employer that includes his leave address. The employer shall issue orders within seven days of the application or two days prior to the start of the leave requested, whichever is earlier. Nevertheless, if the requested leave is to begin on the date of application or within three days, then the order will be issued on the same day.

Acceptance versus denial of leave

Obviously, if an employer grants a leave, he will issue a leave permit to the employee. In the event of a leave refusal, the employer must provide an explanation. It must be communicated to the employee prior to the anticipated start date of the leave.

Prolongation of leave

If the employee, after convincing the employer of the need for leave, desires an extension, he must submit a request to the employer well in advance of the leave’s expiration. The employer must submit a written response to the employee’s leave address granting or denying an extension of leave.

Pregnancy Benefit

Every expectant woman will get:

  • Maternity benefit and maternity absence
  • Possession of the Right to Maternity Benefit

Every woman will be eligible to receive maternity benefits. The benefit period will be 8 (eight) weeks prior to the anticipated date of her delivery and 8 (eight) weeks following the date of her delivery.

When maternity benefits cannot be provided

Women are not eligible for maternity benefits unless they have worked for the employer for at least six months immediately preceding the date of delivery. In addition, no maternity benefit shall be paid to any mother who has two or more surviving children at the time of her confinement. However, she has the authority to request other available leaves in this circumstance.

Methodology for maternity benefits

Any expectant woman eligible for maternity benefits under this act may give oral or written notice to her employer at any time that she expects to be hospitalized within eight weeks. She may also designate an individual to receive maternity benefits in the event of her passing. When such a notification is received, the employer must allow the woman to be absent from the day after the date of notice until eight weeks after the date of delivery.

Any woman who fails to provide such notice and subsequently gives birth must notify her employer within seven days that she has given birth. In this case, maternity leave commences on the day of delivery and continues for eight weeks after that date.

Quantity of maternity benefits

The maternity benefit payable under this law is calculated based on the daily, weekly, or monthly average wage. The daily, weekly, or monthly average wages shall be determined by dividing the woman’s total wages earned during the three months immediately preceding the date she gives notice by the number of days she actually worked during that period. This payment must be made entirely in cash.

Restriction on a woman’s termination

If an employer gives a woman a notice or order of discharge, dismissal, removal, or termination of employment within six months before and eight weeks after her delivery without sufficient cause, she will not be denied any maternity benefits to which she would have otherwise been entitled under the act.

HolidayDate
New Year’s Day1 January 
Language Martyrs’ Day21 February
Birthday of the father of the Nation, Bangabandhu Sheikh Mujibur17 March
Independence Day26 March
Bengali New Year14 April
May Day01 May
Buddha Purnima15 May
Jumatul Bidah 29 April
Eid-ul-Fitr02, 03 & 04 May, Monday, Tuesday & Wednesday
National Mourning Day15 August
Shuba Janmashtami18 August
Eid-ul-Adha09, 10 & 11 July, Saturday, Sunday & Monday
Durga Puja05 October
Ashura09 August
Eid-e-Miladun-Nabi09 October
Victory Day16 December

According to the labor act of Bangladesh, festival holidays may be required to work, but workers shall be provided with two additional compensatory holidays with full pay and a substitute holiday without deduction of wages.

Bangladesh’s maternity leave

In Bangladesh, female employees have a right to eight weeks of paid maternity leave before and after giving birth. Women who have worked for less than six months or who already have two children can often take an unpaid vacation.

For new mothers in Bangladesh, maternity leave is a wonderful perk that can offer some much-needed rest and time off from work.

According to the Labour Act of 2006, expectant mothers have a right to up to 16 weeks of paid maternity leave at their typical daily, weekly, or monthly income.

Requirements for eligibility

The employee had to have spent at least six months working for the employer prior to her pregnancy.
No woman will be eligible for maternity benefits if she had two or more living children at the time of her pregnancy.
Until the employee presents a signed certificate from a licensed medical professional verifying her anticipated confinement or another form of proof that she gave birth to a child, the employer is not required to pay the maternity benefit. The employer may accept either a birth certificate or a medical certificate as proof.
Employers are not allowed to hire women during the first eight weeks after childbirth, and women are not allowed to work in any setting.

Overall, maternity leave continues to be a significant advancement for Bangladesh’s workforce flexibility and advancement of mother health.


Leave for fathers in Bangladesh

Bangladesh is currently prohibited by law from providing paid paternity leave choices.
With the assistance of Tahmidur Remura Wahid, widely regarded as the greatest law practice in Bangladesh, you can easily negotiate the country’s leave policies.

Contact Tahmidur Remura Wahid:

GLOBAL OFFICES:
DHAKA: House 410, ROAD 29, Mohakhali DOHS
DUBAI: Rolex Building, L-12 Sheikh Zayed Road
LONDON: 1156, St Giles Avenue, Dagenham

 Email Addresses:
info@trfirm.com
info@tahmidur.com
info@tahmidurrahman.com

24/7 Contact Numbers, Even During Holidays:
+8801708000660
+8801847220062

+8801708080817

দেওয়ানী মামলার বিভিন্ন ধাপ সমূহ

দেওয়ানী মামলার বিভিন্ন ধাপ সমূহ

দেওয়ানী মামলার বিভিন্ন ধাপ সমূহ এবং একটি অভিযোগ অথবা মামলা দায়ের

দেওয়ানি মামলার প্রক্রিয়া শুরু হয় আদালতের প্রিসাইডিং বিচারকের কাছে একটি আরজি ফাইল করার মাধ্যমে। সমস্ত প্রয়োজনীয় উপকরণ আবেদনপত্রের সাথে জমা দিতে হবে। এটি একটি ডাকটিকিট এবং উপযুক্ত কোর্ট ফি সহ সমনের নোটিশের সাথে অবশ্যই থাকতে হবে। মামলা দায়েরের রেজিস্টারে, সেরেস্তাদার পক্ষের নাম, মামলার ধরন, মামলার নম্বর ইত্যাদি লিপিবদ্ধ করবেন, যদি মামলাটি যথাযথভাবে দায়ের করা হয়।

সমন পরিষেবা

মামলাটি যথাযথভাবে দাখিল করা হলে, আদালত প্রতিটি বিবাদীকে সমন জারি করবে। প্রত্যেক বিবাদীর কাছে আদালত কর্তৃক জারি করা সমনের উদ্দেশ্য হল তাকে অবহিত করা যে তার বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে, একটি নির্দিষ্ট তারিখে আদালতে হাজির হওয়া এবং তার পক্ষে প্রতিক্রিয়া দাখিল করা। আদালত থেকে সমন জারিকারী ব্যক্তিকে অবশ্যই সমনটির একটি অনুলিপি বিবাদীকে দিতে হবে এবং যে ব্যক্তি সমন প্রত্যক্ষ করেছেন তার স্বাক্ষর সহ সমনের একটি অনুলিপি ফাইল করতে হবে। এছাড়াও, আদালত বিভিন্ন পদ্ধতিতে আসামীকে তলব করতে পারে।

একটি লিখিত উত্তর প্রদান করুন

বিবাদীকে সমন যথাযথভাবে প্রদান করা হলে, তাকে অবশ্যই সমনটিতে উল্লেখিত তারিখে উপস্থিত হতে হবে এবং তার পক্ষে জবাব দাখিল করতে হবে। 1908 সালের দেওয়ানী কার্যবিধির আদেশ-8, বিধি-1 অনুসারে, বিবাদীকে সমন জারির তারিখ বা প্রাথমিক আদালতে শুনানির তারিখের দুই মাসের মধ্যে একটি লিখিত জবাব দাখিল করতে হবে। অন্যথায়, মামলার জন্য একটি প্রাক্তন শুনানি নির্ধারিত হবে। যদি আসামী সময়সীমার মধ্যে তার লিখিত প্রতিক্রিয়া দাখিল করতে অক্ষম হয়, তাহলে তিনি অতিরিক্ত সময়ের জন্য আদালতে আবেদন করতে পারেন। যদি বিবাদী তার লিখিত জবাবে তার দাবি সমর্থন করার জন্য কোনো নথির উপর নির্ভর করে, তাহলে তাকে অবশ্যই তার লিখিত জবাবের সাথে সেই নথিগুলি জমা দিতে হবে।

একতরফা শুনানি

যদি কোনো আসামী সময়সীমার মধ্যে লিখিতভাবে জবাব দিতে ব্যর্থ হয় বা আদালতে হাজির হতে ব্যর্থ হয়, তাহলে মামলাটি এক পক্ষের শুনানি হবে। পরে, আদালত একতরফাভাবে একতরফা সাক্ষ্য গ্রহণ করে এবং প্রতিপক্ষের বিষয়ে আসামিদের কোনো দাবি নেই বলে ধরে নিয়ে মামলাটি একতরফাভাবে নিষ্পত্তি করবেন। যদি বিবাদী একটি প্রতিক্রিয়া জমা দেয়, তাহলে আদালত নীচের রূপরেখা অনুযায়ী এগিয়ে যাবে৷

বিকল্প বিরোধ নিষ্পত্তি (ADR):

বিবাদী তার লিখিত জবাব দাখিল করার পরে উভয় পক্ষ আদালতে উপস্থিত থাকলে, আদালত মামলার শুনানি স্থগিত করবে এবং দেওয়ানী কোডের ধারা 89A বা 89B অনুযায়ী আদালতের বাইরে মধ্যস্থতার মাধ্যমে বিরোধ সমাধানের চেষ্টা করবে। পদ্ধতি, 1908।

বিষয় বা কর্তৃত্ব নির্ধারণ

যদি পক্ষগুলি আদালতের বাইরে মধ্যস্থতার মাধ্যমে তাদের বিরোধ নিষ্পত্তি করতে অক্ষম হয়, তাহলে আদালত পরবর্তী কার্যক্রম শুরু করবে। ইস্যুগুলির গঠন বা স্বেচ্ছাচারিতা হল যে বিষয়গুলি নিয়ে মামলা করা হবে তা নির্ধারণ করা। 1908 সালের দেওয়ানী কার্যবিধির আদেশ-14, বিধি-1 অনুসারে, মামলার প্রথম শুনানি বা উত্তর দাখিল করার তারিখের 15 দিনের মধ্যে, যেটি পরে হয় তা প্রণয়ন করতে হবে।

ধারা 30 এ ব্যবস্থা

আদালত যে কোনো সময়, তার নিজস্ব উদ্যোগে বা একটি পক্ষের অনুরোধে, প্রশ্নগুলির বিতরণ এবং উত্তর, নথি এবং তথ্যের প্রাপ্তি, এবং নথিগুলি আবিষ্কার, পরিদর্শন, উত্পাদন বা ফেরত সংক্রান্ত আদেশ জারি করতে পারে বা অন্যান্য গ্রহণযোগ্য প্রমাণ। উপরে তালিকাভুক্ত নথিগুলিকে সাক্ষ্য দিতে বা উত্থাপন করার জন্য, সেইসাথে যে কোনও ঘটনার হলফনামা প্রমাণের আদেশ দেওয়ার জন্য আদালত এমন কাউকে সাবপোনা জারি করতে পারে।

চূড়ান্ত শুনানির তারিখ ঠিক করা (SD)

30 ধারার পদক্ষেপের পর, আদালত মামলার চূড়ান্ত শুনানির তারিখ নির্ধারণ করবে। 1908 সালের সিভিল প্রসিডিউর কোড-অর্ডার-14-এর 8 বিধিতে বলা হয়েছে যে অভিযোগ দায়েরের 120 দিনের মধ্যে মামলার চূড়ান্ত শুনানির তারিখ নির্ধারণ করতে হবে। যদি পক্ষগুলি সাক্ষীদের তালিকা প্রদান করতে ব্যর্থ হয় যারা তাদের পক্ষে সাক্ষ্য দেবে, আদালত তাদের তা করার জন্য অনুরোধ করবে।

চূড়ান্ত শুনানি (PH)

এ সময় আদালত উভয় পক্ষের সাক্ষীদের সাক্ষ্য রেকর্ড করবে। আদালত বিরোধী পক্ষের নিযুক্ত আইনজীবীর দ্বারা সাক্ষীর জেরা রেকর্ড করবে। বিবাদীরা আদালতে বিদ্যমান যে কোনো প্রামাণ্য প্রমাণ উপস্থাপন করবে। শেষ শুনানির প্রাথমিক দিনটিকে পেরেম্পটরি হিয়ারিং বা PH গ্রেটার হিয়ারিং (FPH) বলা হয়।

1908 সালের সিভিল প্রসিডিউর কোড-অর্ডার 18-এর 19 বিধিতে বলা হয়েছে যে চূড়ান্ত শুনানির তারিখের 120 দিনের মধ্যে মামলার শুনানি করতে হবে। আদালত বিচারের প্রথম দিনে সমস্ত সাক্ষীর সাক্ষ্য রেকর্ড করতে না পারলে, এটি আরও শুনানির জন্য একটি তারিখ নির্ধারণ করবে, যা FPH নামে পরিচিত।

মামলার পক্ষে যুক্তি

মামলার শুনানি, উভয় পক্ষের সাক্ষীর সাক্ষ্যগ্রহণ ও জেরা শেষে বাদী-বিবাদীর নিযুক্ত অ্যাটর্নি আদালতে তাদের পক্ষে যুক্তি উপস্থাপন করবেন। মোকদ্দমার শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত সকল বিষয় সংক্ষিপ্তভাবে উপস্থাপন করা হবে। যুক্তি স্পষ্ট এবং বৈধ হতে হবে. যুক্তিতর্ক শেষে রায় ঘোষণার দিন ধার্য করবেন আদালত।

রায় ঘোষণা

দেওয়ানী কার্যবিধি- ১৯০৮ এর আদেশ -২০ বিধি- ৫(a) অনুযায়ী আদালত রায় ঘোষণার পরবর্তী সাতদিনের মধ্যে ডিক্রি প্রস্তুত করবেন ।

জারি করা সংবিধি

1908 সালের সিভিল প্রসিডিউর কোডের আদেশ 21 অনুসারে, পক্ষগুলি ডিক্রির জন্য আদালতে আবেদন করতে পারে। মামলায় আদালতকে ডিক্রি পাস করা থেকে বিরত রাখার বিষয়ে ডিক্রি কার্যকর করার নির্দেশনা থাকলে, বিবাদী ডিক্রি কার্যকর না হলেও ডিক্রির জন্য ফাইল করতে পারে।

রিভিউ

দেওয়ানী কার্যবিধির 114 ধারা অনুযায়ী, 1908, ট্রায়াল কোর্ট ট্রায়াল কোর্টের সংক্ষিপ্ত রায় পর্যালোচনা করতে পারে যদি আদালত নির্ধারণ করে যে সরকার বিচারের সাথে জড়িত পক্ষগুলি সম্পর্কে সচেতন ছিল, যদি নথির তালিকাভুক্ত নথিতে প্রমাণ থাকে একটি অন্যায় বিচার, বা অন্য কোন কারণে.

রিভিশন

নিম্ন আদালতের রায় যেটি ইস্যুটিকে সংক্ষিপ্ত বা স্পষ্ট করে দিয়েছিল তা সেই রায়ের বিরুদ্ধে হাইকোর্টের বিচারে কোড অফ সিভিল প্রসিডিওর – 1908 এর ধারা 115 অনুসারে সংশোধন করা যেতে পারে। শুনানির উপসংহারে, আপিল আদালত অধস্তন আদালতের রায় বহাল বা খালি করতে পারে।

আপিল

আইন দ্বারা বিচার চলাকালীন, নিম্ন আদালতের রায়ে সংক্ষিপ্ত বা ব্যাখ্যা করা যেতে পারে এমন একটি প্রশ্ন দেওয়ানী কার্যবিধি-1908-এর ধারা 96 অনুসারে উচ্চতর আদালতে আপিল করা যেতে পারে। অধিবেশন শেষে, আপিল আদালত নিম্ন আদালতের সিদ্ধান্তকে নিশ্চিত বা বাতিল করতে পারে। সভ্যতা বোঝা: একটি ধাপে ধাপে প্রক্রিয়া। এছাড়াও, পর্যায়ক্রমে সক্রিয় নাগরিক উত্তর প্রশ্নগুলি অংশগ্রহণের আবেদনের আলোকে বিকল্প আবেদনের জন্য যোগ্যতা অর্জন করতে পারে।

আপনার দেওয়ানী বা ফৌজদারি কার্যধারার জন্য, বাংলাদেশের সেরা মোকদ্দমা ল ফার্ম এবং উকিল দের নিযুক্ত করুন:


তাহমিদুর রহমান রিমুরা ওয়াহিদ বাংলাদেশের অন্যতম অভিজ্ঞ আইন সংস্থা, বিশ্বের বৃহত্তম কর্পোরেশনগুলির প্রতিনিধিত্ব করে এবং বৃহত্তম আন্তর্জাতিক আইন সংস্থাগুলির সাথে সহযোগিতা করে।


ফার্মটিকে তার অসামান্য লেনদেন ক্ষমতা এবং দৃঢ় মোকদ্দমা অনুশীলনের কারণে এই অঞ্চলের অ্যাডভোকেট, ব্যারিস্টার এবং সলিসিটরদের অন্যতম সেরা চেম্বার হিসাবে বিবেচনা করা হয়।


আইন সংস্থাটির M&A, প্রজেক্ট ফাইন্যান্স, PPP এবং অবকাঠামো প্রকল্প উন্নয়ন, বৌদ্ধিক সম্পত্তি, কর এবং কর্মসংস্থানে উল্লেখযোগ্য দক্ষতা রয়েছে।


ফার্মের মোকদ্দমা প্রথার বিভিন্ন শ্রেণীবিভাগের বিরোধ পরিচালনার ইতিহাস রয়েছে। ব্যবসাগুলি কৌশল অনুসরণ করে, প্রয়োগ এবং মামলার উদ্বেগ বৃদ্ধি পায়।


অনেক ক্লায়েন্ট ঝুঁকি ব্যবস্থাপনা কৌশল হিসাবে প্রয়োগ এবং মামলা দেখে। এটি একাধিক পক্ষ এবং দাবি জড়িত জটিল, বহুমুখী কেস পরিচালনায় পারদর্শী। ফার্মটি সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য এবং উচ্চ-প্রোফাইল ক্ষেত্রে বিশেষ করে মেধা সম্পত্তি, নির্মাণ, অর্থ এবং শক্তির ক্ষেত্রে ক্লায়েন্টদের প্রতিনিধিত্ব করে।


প্রশাসনিক এবং নিয়ন্ত্রক কর্তৃপক্ষের পদক্ষেপ এবং সরকারী চুক্তির প্রয়োগকে চ্যালেঞ্জ করে সাংবিধানিক পিটিশনের সাথে ফার্মের সাফল্যের একটি ট্র্যাক রেকর্ড রয়েছে। সরকার কর্তৃক প্রণীত প্রশাসনিক সিদ্ধান্তের বিচার বিভাগীয় পর্যালোচনারও এর ব্যাপক অভিজ্ঞতা রয়েছে।

টি আর ডবলু একটি সনামধন্য ‘ল’ চেম্বার এখানে ব্যারিস্টারস ও  আইনজীবীর মাধ্যমে দেওয়ানী মামলা সহ অন্য সকল বিষয়ে আইনগত সহায়তা, পরামর্শ প্রদান করে থাকে। কোন প্রশ্ন বা আইনী সহায়তার জন্য আমাদের সাথে যোগাযোগ করুনঃ

GLOBAL OFFICES:
DHAKA: House 410, ROAD 29, Mohakhali DOHS
DUBAI: Rolex Building, L-12 Sheikh Zayed Road
LONDON: 1156, St Giles Avenue, Dagenham

 Email Addresses:
info@trfirm.com
info@tahmidur.com
info@tahmidurrahman.com

24/7 Contact Numbers, Even During Holidays:
+8801708000660
+8801847220062

+8801708080817

আমদানি রপ্তানি লাইসেন্স কিভাবে করবেন

আমদানি রপ্তানি লাইসেন্স কিভাবে করবেন

আমদানি রপ্তানি লাইসেন্স কিভাবে করবেন

বাংলাদেশের একটি লাভজনক ব্যবসা হল আমদানি ও রপ্তানি ব্যবসা আপনিও একটি সফল আমদানি-রপ্তানি ব্যবসা চালু করতে পারেন বাংলাদেশে। একটি আমদানি এবং রপ্তানি লাইসেন্স প্রাপ্ত করা আবশ্যক, যদিও, একটি আমদানি এবং রপ্তানি ব্যবসা শুরু করার আগে ইমপোর্ট রেজিষ্ট্রেশন সার্টিফিকেট (IRC) এবং এক্সপোর্ট রেজিষ্ট্রেশন সার্টিফিকেট (ERC) করাতে হয় আজকে আমরা দেখবো কিভাবে ইমপোর্ট রেজিষ্ট্রেশন সার্টিফিকেট (IRC) করা যায়।

রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর মতে, ২০২১-২২ অর্থবছরে বাংলাদেশের রপ্তানি ৫২.০৮ বিলিয়ন ডলারে পৌঁছেছে, যেখানে এর আমদানি দাঁড়িয়েছে ৬৫.৪৮ বিলিয়ন ডলারে। দেশের প্রধান রপ্তানির মধ্যে রয়েছে তৈরি পোশাক, হিমায়িত খাদ্য, চামড়াজাত পণ্য এবং পাটজাত পণ্য, যেখানে এর প্রধান আমদানির মধ্যে রয়েছে মূলধনী যন্ত্রপাতি, পেট্রোলিয়াম পণ্য, রাসায়নিক এবং বস্ত্র শিল্পের কাঁচামাল। তৈরি পোশাক খাত বাংলাদেশের অর্থনীতিতে সবচেয়ে বড় অবদান রাখে, যা এর মোট রপ্তানির 80% এরও বেশি।

ইমপোর্ট রেজিষ্ট্রেশন সার্টিফিকেট পেতে নিম্নলিখিত ধাপসমূহ অনুসরন করতে হয় (Import Registration Certificate -IRC Issue)

১. আমদানি ও রপ্তানির চীফ কন্ট্রোলারের অফিস থেকে আমদানি নিবন্ধন ফরম সংগ্রহ করুন। 

২. আমদানি লাইসেন্স নিবন্ধনের জন্য নির্ধারিত হারে নিবন্ধন ফি জমা দিতে হয়। বাংলাদেশ ব্যাংক বা সোনালী ব্যাংকের শাখায় সিডিউল ফি জমা দিন।

৩. নির্ধারিত ফিস সহ আরও কিছু প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসহ আবেদন ফরম পূরণ পূর্বক আমদানি ও রপ্তানির চীফ কন্ট্রোলারের অফিস জমা দিন। 

প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসমূহ

  • প্রতিষ্ঠানের নাম ও ঠিকানায় হালনাগদকৃত ট্রেড লাইসেন্স
  • ই-টিনআইএন/আয়কর প্রত্যয়নপত্র
  • প্রতিষ্ঠানের আর্থিক স্বচ্ছলতা সম্পর্কিত মনোনীত ব্যাংক কর্তৃক প্রত্যয়নপত্র বা ব্যাংক সলভেন্সি সার্টিফিকেট 
  • স্বীকৃত চেম্বার/ব্যবসায় সংশ্লিষ্ট ট্রেড এসোসিয়েশনের হালনাগদকৃত সদস্যতা সনদ
  • আবেদনকারীর জাতীয় পরিচয়পত্র ও সদ্যতোলা পাসপোর্ট সাইজের ছবি
  • বিশেষায়িত ব্যবসায়ভুক্ত আমদানির ক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় লাইসেন্স/অনুমতিপত্র (প্রযোজ্যক্ষেত্রে)
  • অংশীদারী ব্যবসায় হলে রেজিস্টার্ড অংশীদারী দলিল (আরজেএসসি/সাব-রেজিস্ট্রি অফিস হতে জারিকৃত)
  • লিমিটেড কোম্পনির ক্ষেত্রে সার্টিফিকেট অব ইনকর্পোরেশন, আর্টিক্যাল অব এসোসিয়েশন, মেমোরেন্ডাম অব এসোসিয়েশন 

সাধারণভাবে ইমপোর্ট রেজিষ্ট্রেশন সার্টিফিকেট (IRC) এর  জন্য উপরোল্লোখিত কাগজপত্রই যথেষ্ট। তবে শিল্প প্রতিষ্ঠান, যৌথ বিনিয়োগ/১০০% বিদেশী বিনিয়োগ, ইন্ডেন্টিং ফার্ম ও বিশেষ উদ্দেশ্যে বা বিশেষ পণ্য আমদানির ক্ষেত্রে আরও কিছু কাগজপত্র জমা দিতে হয়। যা এই লিংকে ক্লিক করে জেনে নিতে পারবেন।

আইনি পূর্বশর্তঃ


বাংলাদেশে রপ্তানি-আমদানি ব্যবসা শুরু করতে হলে আপনাকে অবশ্যই বেশ কিছু আইনি বিধিনিষেধ মেনে চলতে হবে। আপনার সাম্প্রতিকতম আইন এবং প্রবিধানগুলি মেনে চলা উচিত কারণ এই আইনি প্রয়োজনীয়তাগুলি সময়ের সাথে পরিবর্তিত হয় তা স্বীকার করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ৷ উপরন্তু, আপনার কোম্পানি সমস্ত প্রযোজ্য জাতীয় আইন মেনে চলছে তা নিশ্চিত করার জন্য আপনাকে অবশ্যই যোগ্য আইনি পরামর্শ পেতে হবে। বাংলাদেশে একটি রপ্তানি-আমদানি কোম্পানি চালাতে আপনার প্রয়োজনীয় কাগজপত্র নিচে তালিকাভুক্ত করা হয়েছে।

ব্যবসা নিবন্ধন:

আপনাকে অবশ্যই আঞ্চলিক সরকারী অফিস থেকে ট্রেড লাইসেন্সের জন্য আবেদন করতে হবে এবং জয়েন্ট স্টক কোম্পানি ও ফার্মের নিবন্ধকের (RJSC) সাথে আপনার ব্যবসা নিবন্ধন করতে হবে।


আমদানি ও রপ্তানির জন্য লাইসেন্স: আপনি যে পণ্য আমদানি বা রপ্তানি করছেন তার উপর নির্ভর করে, আপনাকে বাংলাদেশ ব্যাংক, বাংলাদেশ ট্যারিফের মতো উপযুক্ত সরকারি সংস্থা থেকে লাইসেন্স এবং রপ্তানি নিবন্ধন শংসাপত্র (ERC) বা আমদানি নিবন্ধন শংসাপত্র (IRC) অর্জন করতে হতে পারে। কমিশন বা বাণিজ্য মন্ত্রণালয়।


ট্যাক্স আইডেন্টিফিকেশন নম্বর:

বাংলাদেশে একটি রপ্তানি-আমদানি ফার্ম শুরু করতে, আপনাকে অবশ্যই জাতীয় রাজস্ব বোর্ড থেকে একটি ট্যাক্স আইডেন্টিফিকেশন নম্বর (টিআইএন) পেতে হবে।


আন্তর্জাতিক বাণিজ্য চুক্তির সাথে সম্মতি: বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার (ডব্লিউটিও) সদস্য হিসাবে, বাংলাদেশকে সমস্ত ডব্লিউটিও এবং অন্যান্য আন্তর্জাতিক বাণিজ্য চুক্তির নিয়ম ও প্রবিধান মেনে চলতে হবে।


কাস্টমস ক্লিয়ারেন্স:

বাংলাদেশ কাস্টমস কর্তৃপক্ষকে অবশ্যই সমস্ত আমদানি ও রপ্তানিকৃত পণ্য পরিষ্কার করতে হবে। আপনাকে অবশ্যই শুল্ক আইন মেনে চলতে হবে, যার মধ্যে সমস্ত প্রযোজ্য ফি এবং ট্যাক্স প্রদান অন্তর্ভুক্ত রয়েছে।
শ্রম আইনের সাথে সম্মতি: আপনাকে অবশ্যই বাংলাদেশের সমস্ত প্রযোজ্য শ্রম আইন মেনে চলতে হবে, যার মধ্যে ন্যূনতম মজুরি, কর্মঘণ্টা এবং অন্যান্য কর্মসংস্থান সুবিধাগুলি নিয়ন্ত্রণ করে।

আমদানি লাইসেন্স নিবন্ধন ফি হার (IRC FEE)

আপনার আমদানির পরিমাণের উপর ভিত্তি করে আমদানি নিবন্ধন ফি নির্ধারিত হয়ে থাকে এবং এই আমদানি নিবন্ধন লাইসেন্স এক বছরের জন্য প্রদান করা হয়ে থাকে। আমদানি নিবন্ধন লাইসেন্স প্রতিবছর নবায়ন করতে হয়। নিবন্ধন ফি ও নবায়ন ফি হার বিস্তারিত নিচে উল্লেখ করা হলো:

  • নিবন্ধন ফি ও নবায়ন ফি জমার কোড ১-১৭৩১-০০০১-১৮০১
  • সারচার্জবিহীন নবায়নের সময়সীমা প্রতিবছর ১লা জুলাই হতে ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন
  • সকল প্রকার ফি এর উপর ১৫% ভ্যাট প্রযোজ্য। ভ্যাট কোড ১-১১৩৩-০০১০-০৩১১ (ঢাকা আঞ্চলিক দপ্তরের জন্য)
  • নিবন্ধন ফি ও নবায়ন ফি এর হার:
শ্রেণী নং বার্ষিক আমদানি মূল্যসীমা প্রাথমিক নিবন্ধন ফি বার্ষিক নবায়ন ফি
প্রথম৫ লক্ষ টাকা৫,০০০ টাকা৩,০০০ টাকা
দ্বিতীয়২৫ লক্ষ টাকা১০,০০০ টাকা৬,০০০ টাকা
তৃতীয়৫০ লক্ষ টাকা২৪,০০০ টাকা ১০,০০০ টাকা
চতুর্থ১ কোটি টাকা৪০,০০০ টাকা ১৫,০০০ টাকা
পঞ্চম৫ কোটি টাকা৫০,০০০ টাকা ২২,০০০ টাকা
ষষ্ঠ২০ কোটি টাকা৬০,০০০ টাকা২৪,০০০ টাকা
সপ্তম৫০ কোটি টাকা৭০,০০০ টাকা২৮,০০০ টাকা
অষ্টম ৫০ কোটির উর্দ্ধে ৮০,০০০ টাকা ৩২,০০০ টাকা 
  • নবায়ন বই ফি ১,০০০ টাকা।

আমদানি রপ্তানি লাইসেন্স এর জন্য যে সকল কাগজপত্র প্রয়োজন তা নিম্নরুপঃ

জাতীয় পরিচয় পত্র এবং ছবিঃ

আবেদনকারী সহ কোম্পানীর সকল পরিচালকদের জাতীয় পরিচয় পত্রের ফটোকপি এবং সদ্যতোলা পাসপোর্ট সাইজে রঙ্গিন ছবি ।

পাসপোর্ট এবং ওয়ার্ক পারমিট ভিসাঃ

  • কোম্পানীতে বিদেশী কোন পরিচালক থাকলে তাদের পাসপোর্ট এবং বিডা কর্তৃক ওয়ার্ক পারমিট
  • ভিসা এর ফটোকপি লাগবে। কোম্পানীতে বিদেশী কোন পরিচালক বাংলাদেশে অবস্থান না করলে অথবা বিডা কর্তৃক ওয়ার্ক পারমিট ভিসা না থাকলে তাহলে তারা বাংলাদেশে অবস্থান করছে না এই মর্মে একটি আন্ডারটেকিং দিতে হবে।

ট্রেড লাইসেন্সঃ

যে কোন ব্যবসার জন্য ট্রেড লাইসেন্স হচ্ছে ব্যবসার অনুমতিপত্র। আবেদনের সময় অবশ্যয়

ব্যাংক সলভেন্সিঃ

ট্রেড লাইসেন্স এর ঠিকানায় ব্যাংক সলভেন্সি নিতে হবে। ট্রেড লাইসেন্স করার পর ব্যবসার নামে একটি ব্যংক একাউন্ট খুলে নিন। এখানে লক্ষণীয় যে, আপনার প্রতিষ্ঠানের নামে ব্যাংক একাউন্ট খুলবেন। কোন মতেই ভিন্ন নাম দিবেন না। কিছুদিন লেনদেন করার পর ব্যাংককে বলুন আপনার ব্যবসার নামে প্রত্যায়ন পত্র দিতে। অর্থাৎ ব্যাংককে বলবেন আপনাকে একটি ব্যাংক সলভেন্সি সার্টিফিকেট দিতে।

টিন সার্টিফেকেটঃ

বর্তমানে অনলাইনে সহজেই ইটিন বা টিন সার্টিফিকেট করা যায়। এরজন্য কোন ফি প্রয়োজন হয় না। অর্থাৎ আপনি নিজেই অনলাইনে বিনামূল্যেTIN সার্টিফিকেট করতে পারেন।

স্কীকৃত ট্রেড আ্যসোসিয়েশন থেকে বৈধ মেম্বারশিপঃ

মেম্বার শিপ সার্টিফিকেট অর্থাৎ আমদানি বা রপ্তানি ব্যবসা করার ক্ষেত্রে  আপনাকে যে কোন একটি ব্যবসায়ী সংগঠনের সদস্য হতে হবে এবং সংঘ থেকে সদস্য সনদ গ্রহণ করতে হবে।

ভ্যাট সার্টিফেকেটঃ

বর্তমান প্রতিটি উৎপাদন কিংবা সার্ভিস প্রদানকারী প্রতিষ্ঠানকে বাধ্যতামূলকভাবে ভ্যাট প্রদান করতে হয়। আপনার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান কোন উৎপাদনশীল কিংবা সার্ভিস প্রদান করিলে ভ্যাট সার্টিফিকেট অবশ্যই প্রয়োজন হবে। এখন অবশ্য অনলাইনে ভ্যাট রেজিট্রেশন করতে পারেন। নিজে নিজে করতে না পারলে এক্সপার্ট কারো সাহায্য নিয়ে সহজেই অনলাইনে ভ্যাট সার্টিফিকেটকরতে পারেন।

আন্ডারটেকিংঃ

কোম্পানীতে বিদেশী কোন পরিচালক বাংলাদেশে অবস্থান না করলে অথবা বিডা কর্তৃক ওয়ার্ক পারমিট ভিসা না থাকলে তাহলে তারা বাংলাদেশে অবস্থান করছে না এই মর্মে একটি আন্ডারটেকিং দিতে হবে।

জয়েন্ট ভেঞ্চার এগ্রিমেন্টঃ

কোম্পানীতে সকল পরিচালকদের মধ্যে ব্যাবসায়িক বা জয়েন্ট ভেঞ্চার এগ্রিমেন্ট থাকতে হবে। আমদানি রপ্তানি লাইসেন্স এর আবেদনের সময় জয়েন্ট ভেঞ্চার এগ্রিমেন্ট এর ফটোকপি সাবমিট করতে হবে ।

রপ্তানি নিবন্ধন এর নিবন্ধন ফিঃ

ক্রমিক বিভিন্ন ধরনের রপ্তানি সনদ নিবন্ধন ফি

ক্রমিকবিভিন্ন ধরনের রপ্তানি সনদনিবন্ধন ফি
রপ্তানি নিবন্ধন সনদ( ই আর সি) ১০,০০০/-
রপ্তানি নিবন্ধন সনদ( ইনভেন্টিং সার্ভিস) ৫০,০০০/-

টি.আর.ডাব্লিউ কর্তৃক আইনী সেবা:

তাহমিদুর রহমান রিমুরা ওয়াহিদ (টি.আর.ডাব্লিউ) একটি সনামধন্য ‘ল’ চেম্বার যেখানে ব্যারিস্টারস , আইনজীবীর মাধ্যমে আমদানি রপ্তানি লাইসেন্স সহ অন্য সকল বিষয়ে আইনগত সহায়তা, পরামর্শ প্রদান করে থাকে। কোন প্রশ্ন বা আইনী সহায়তার জন্য আমাদের সাথে যোগাযোগ করুনঃ-

GLOBAL OFFICES:
DHAKA: House 410, ROAD 29, Mohakhali DOHS
DUBAI: Rolex Building, L-12 Sheikh Zayed Road
LONDON: 1156, St Giles Avenue, Dagenham

 Email Addresses:
info@trfirm.com
info@tahmidur.com
info@tahmidurrahman.com

24/7 Contact Numbers, Even During Holidays:
+8801708000660
+8801847220062

+8801708080817

CALL US!
× Whatsapp us!